আইটি ছাদিক https://www.itsadik.xyz/2020/04/blog-post_80.html

বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য

বিজ্ঞাপন স্পেসের আগে / পরে

বারকোড (Bar Code) কি

কোনো দ্রব্য বা আচ্ছাদনের (Cover) গায়ে পাশাপাশি অনেকগুলো লম্বা রেখা বা বার থাকে, সাংকেতিক এই রেখাকে বলা হয় বারকোড । সাধারণত পণ্য বা দ্রব্যের মূল্য বা অন্যান্য তথ্যের জন্য বারকোড ব্যবহার করা হয় । 
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য

একটি স্ট্যান্ডার্ড বার কোড উৎপাদিত দ্রব্যের পরিচিতি, সংখ্যা, উৎপাদন এবং মূল্য নির্ধারণী সংকেত বহন করে । বিশ্বে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন প্রতিটি পণ্যেই এই বারকোড থাকে । এটা ইলেক্ট্রনিক পদ্ধতিতে পাঠ করে সংখ্যাসূচক সংকেত বা কোড থেকে তথ্য পাওয়া যায় ।
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য

বারকোড এর ব্যবহারঃ

একটি জিনিসের বারকোডের সঙ্গে অন্য জিনিসের আরকোডের কোনো মিল নেই । আর মিল না থাকারই কথা । কারণ, সব জিনিসপত্র তো আর এক নয় কিংবা সেসবের মান, উৎপাদনকাল ও দামও এক নয় । তবে পার্থক্যটা খুব স্পষ্ট নয়, বরং খুবই সূক্ষ্ম যা এক রকম ধরা যায় না । বিভিন্ন প্রকার বারকোড ছাপানোর উদ্দেশ্য হলো-ঐসব পণ্য সম্পর্কিত তথ্য ক্রেতাদের জানানো বা অবগত করানো । যেমন-দাম, সংখ্যা, উৎপাদন তারিখ, এক্সপেয়ার ডেট, গুণগত মান ইত্যাদি । এ সংকেত দেখে সাধারণভাবে কোনো ব্যক্তি পণ্যের পূর্বোক্ত তথ্য সম্পর্কে অবগত হতে পারে না । শুধুমাত্র কম্পিউটারইজড স্ক্যানার এ তথ্য বা সংকেত পড়তে পারে । দোকানে গিয়ে কোনো জিনিস ক্রয়ের পর ক্যাশিয়ার তার স্ক্যানারের সেন্সর ঐ বারকোডের ওপর দিয়ে শুধু একবার টেনে নিয়ে যায় । সঙ্গে সঙ্গে ঐ পণ্যের যাবতীয় তথ্য কম্পিউটার রেকর্ড করে নেয় এবং সেসব তথ্য কম্পিউটার স্ক্রিণের ওপর ভেসে ওঠে । উন্নত বিশ্বে দোকানিরা এভাবেই পণ্য বিক্রয় করে থাকে । আজ থেকে প্রায় তিন দশক আগে বারকোড এর প্রচলন শুরু হয়েছে । কম্পিউটারের ব্যাপক ব্যবহার ও প্রসারের সঙ্গে সঙ্গে বারকোডেরও প্রসার ঘটেছে দ্রুত গতিতে । এক কথায় বলা যায়-দৃশ্যত বারকোড হলো পণ্যের পরিচিতি পত্র ।


কিউআর কোড (QR Code) কিঃ

কিউআর কোড (QR Code) এর পূর্ণরূপ হচ্ছে ‘কুইক রেসপন্স কোড (Quick Response Code)’ । কিউআর কোডগুলি আসলে এক ধরণের বারকোড তবে এর আকৃতি বর্গাকৃতির হয় যা প্রথম জাপানে ডেভলাপ করা হয় এবং ব্যবহৃত হয়েছিল । অন্য যেকোনো বারকোডের মতো, কিউআর কোড মেশিন-পঠনযোগ্য কোড যার প্রত্যেকটি অপটিক্যাল লেবেলে বিভিন্ন তথ্য সংরক্ষণ করা হয় । যেমন-ইমেইল অ্যাড্রেস, ফোন নম্বর বা যেকোনো ট্যাক্সট ডাটাও হতে পারে ।
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য



কিউআর কোড (QR Code) এর ব্যবহারঃ

বর্তমানে কিউআর কোড এর ব্যবহার সর্বত্র পরিলক্ষিত হচ্ছে । বিশেষ করে স্মার্টফোনের ক্যামেরাই যথেষ্ট এই কোড রিড করতে; তাই স্মার্টফোনের ব্যবহার বৃদ্ধি হওয়ায় এর গ্রহণযোগ্যতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে । কিউআর কোড জেনারেট করা ও ব্যবহার করা খবুই সহজ । যেকোনো বারকোড থেকে কিউআর কোড-এ অধিক পরিমান তথ্য সংরক্ষণ করা যায় । একটি কিউআর কোড-এ ৪০০০ অক্ষর পর্যন্ত ধারণ করতে পারে । কিআর কোডের মাধ্যমে-ব্যক্তিগত তথ্য প্রদর্শন (বাড়ির/ব্যবসায়ের ঠিকানা, ইমেইল, ফোন নম্বর, যেকোন বার্তা) করা যায়, অর্থ প্রদান করা যায়, নির্দিষ্ট কোন ওয়েবসাইটে যাওয়ার জন্য লিংক করা যায়, অনলাইন অ্যাথরাইজেশন বা ওয়াই-ফাই কানেক্টিভিও অ্যাথরাইজেশন করা যায় ।


বার কোড এবং কিউআর কোডের মধ্যে মূল পার্থক্য:

১. কিউআর কোড এক ধরণের বারকোড হলেও এটি ২ডি বা দ্বিমাত্রিক ট্র্যাক ব্যবহার করে তাই এটি যেকোনো অ্যাঙ্গেল থেকে স্ক্যান করা যায়, যার জন্য একটি স্মার্টফোনের ক্যামেরাই যথেষ্ট । অন্যদিকে একটি বেসিক বারকোড ১ডি উপায়ে তথ্য সংরক্ষণ করা হয় এবং ৩৬০ডিগ্রি স্ক্যানের উপযোগিতা প্রদান করে না ।


২. বার কোডগুলি বিভাজন সহ্য করতে পারে না অন্যদিকে কিউআর কোডগুলি ক্ষয় সহ্য করতে পারে যা (0 থেকে 30% এর মধ্যে কনফিগারযোগ্য) । তাই বারকোডের তুলনায় কিউআর কোডগুলিতে তথ্য সঞ্চয় করতে কম জায়গার প্রয়োজন হয়।


ভবিষ্যতে কিউআর কোড কি বারকোডের জায়গা দখল করবে?
না । আপনি যদি মুদি দোকানের বিভিন্ন আইটেমগুলির গায়ে লক্ষ্য করেন তাহলে দেখবেন এখনও সেগুলোতে বেসিক বার কোড ব্যবহৃত হচ্ছে । কারণ দোকানে কেবলমাত্র একটি পণ্য আইডি প্রয়োজন।


বারকোড ও কিউআর কোড স্ক্যানার অ্যাপসঃ

স্মার্টফোনে বারকোড ও কিউআর কোড স্ক্যান করার জন্য সেরা কয়েকটি অ্যাপস দেওয়া হলো ।এগুলো অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেম সমর্থিত ।
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য




QR & Barcode Scanner : বিনামূল্যের এই অ্যাপের এর মাধ্যমে সবধরনের কিউআর কোড ও বার কোড স্ক্যান করা যায় সহজে । বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হলেও ছোটখাটো কাজ সারতে পারেন । তাছাড়া বিজ্ঞাপন সরাতে চাইলে টাকা ব্যয় করে প্রো সংস্করণ ব্যবহার করতে হবে । ডাউনলোড : অ্যান্ড্রয়েডআইওএস

বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য
বার কোড ও কিউআর কোড কি, কেন, কিভাবে? এদের মধ্যে পার্থক্য



Kaspersky QR Scanner : ক্যাসপারস্কি এন্টি-ভাইরাস হিসেবে সুনাম তো রয়েছে অনেক দিনের । এই কিউআর স্ক্যানার অ্যাপটিতে স্ক্যান করার পাশাপাশি কিছু বাড়তি ফিচার হচ্ছে পূর্বে স্ক্যানকৃত কোডগুলো হিস্টোরি হিসেবে সংরক্ষণ করে যাতে নতুন করে বারবার স্ক্যান করার প্রয়োজন হয় না । তাছাড়া স্ক্যানকৃত কোড এর ক্ষতিকর লিংকগুলো থেকেও সুরক্ষা প্রদান করে । ডাউনলোড : অ্যান্ড্রয়েডআইওএস


QuickMark Bar-code Scanner : এটিও বারকোড ও কিউআর কোড স্ক্যানার হিসেবে সেরা বিকল্প ।অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস এর জন্য ডাউলোড ঠিকানা : http://www.quickmark.com.tw/en/basic/downloadMain.asp



যেভাবে কিউআর কোড তৈরি করবেনঃ

চাইলে সহজেই কিউআর কোড তৈরি করা যায় । আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী (ইউআরএল, টেক্সট, ই-মেইল, এসএমএস, ভি-কার্ড, মি-কার্ড, লোকেশন, ফেইবুক/টুইটার/ইউটিউব কন্টেন্ট, ওয়াই-ফাই অথরাইজেশন, ইভেন্ট) সম্বলিত কিউআর কোড তৈরি করতে https://www.qrcode-monkey.com/ এই ওয়েবসাইট বেশ কাজের । নিম্নে আরও কয়েকটি অনলাইন কিউআর কোড জেনারেটর দেওয়া হলো ।
https://www.qr-code-generator.com/

https://www.the-qrcode-generator.com/
বিজ্ঞাপন স্পেসের আগে / পরে

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন:

Sadikur Rahman
পোস্ট করেছেনঃ Sadikur Rahman
পোস্ট ক্যাটাগরি
0 মন্তব্য

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন. ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

আইটি ছাদিক কী?